1. [email protected] : amicritas :
  2. [email protected] : newsdhaka :
বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০৮:২২ পূর্বাহ্ন

মাদারীপুরে দম্পতি অপহরণ ও হত্যা পরিকল্পনার হোতা গ্রেপ্তার

নিউজ ঢাকা প্রতিবেদক
  • শেষ আপডেট: বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১

মাদারীপুরের কালকিনিতে আলোচিত স্বামী-স্ত্রী অপহরণ, মুক্তিপন দাবি ও হত্যার ঘটনায় প্রধান পরিকল্পনাকারী আশরাফুল মোল্লাকে (৩৯) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। বৃহস্পতিবার বিকেলে নড়াইলের সদর উপজেলার শৈলপুর থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করে পিবিআই গোপালগঞ্জ জেলার একটি টিম। গ্রেপ্তারের সময় তার কাছ থেকে ওই দম্পতির ব্যবহৃত দুটি মুঠো ফোনও জব্দ করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার আশরাফুলকে নড়াইল সদর থানায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে গোপালগঞ্জে নিয়ে আসা হয়। আশরাফুল নড়াইল সদর উপজেলার মধ্যপল্লী এলাকার আকবর মোল্লার ছেলে।

পিবিআই সূত্র জানায়, ৪ এপ্রিল নিখোঁজ হন মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের সস্তাল গ্রামের মোয়াজ্জেম সরদার ও তাঁর স্ত্রী মাকসুদা বেগম। পরে পরিবারের পক্ষ থেকে ৫ এপ্রিল কালকিনি থানায় অজ্ঞাতনামা বেশ কয়েকজনকে আসামি করে একটি অপহরণ মামলা করা হয়। নিখোঁজের চার দিন পর ৯ এপ্রিল রাজারচরের শুকিয়ে যাওয়া একটি খালের ভেতর থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় ওই দম্পতির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে মামলার তদন্তের দায়িত্ব পায় পিবিআই।

তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় ঘটনার ১৩ দিন পর নড়াইল থেকে এই ঘটনার প্রধান পরিকল্পনাকারী আশরাফুলকে গ্রেপ্তার করে পিবিআই। এ সময় নিহত স্বামী-স্ত্রীর ব্যবহৃত মুঠোফোনও উদ্ধার করা হয়।

পিবিআই গোপালগঞ্জ জেলার উপপরিদর্শক (এসআই) শেখ আল আমিন বলেন, সম্প্রতি কৃষিকাজ করতে অপরিচিত কয়েকজন যুবক সস্তাল গ্রামে আসেন। পরে মোয়াজ্জেমের বসতঘরে অবস্থান নেন তাঁরা। পূর্বশত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষের লোকজন ওই অপরিচিত যুবকদের দিয়ে এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন। কাজ করতে আসাদের দলে ছিলেন আশরাফুল মোল্লা। অপহরণ থেকে শুরু করে হত্যা পর্যন্ত পুরো ঘটনাটি সাজানো হয় তাঁর পরিকল্পনায়। আসামিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে বিস্তারিত আরও তথ্য জানা যাবে।

নিহত মোয়াজ্জেম ও মাকসুদার এক ছেলে ও পাঁচ মেয়ে রয়েছে। তাঁরা ২০২০ সালে ওই এলাকায় ঘটে যাওয়া জিয়াবুল মোল্লা হত্যা মামলার সাক্ষী ছিলেন।

অনুগ্রহ করে পোস্টটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটেগরির অন্যান্য পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *