1. [email protected] : amicritas :
  2. [email protected] : newsdhaka :
মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ০২:৫৯ পূর্বাহ্ন

হুলহুলিয়ার দেড় শতাধিক সন্তান প্রকৌশলী, শতাধিক চিকিৎসক

রিপোর্টার
  • শেষ আপডেট: মঙ্গলবার, ২৩ মার্চ, ২০২১

আঁকাবাঁকা মেঠো পথ আর সবুজ-শ্যামল, অপরূপ ও মনোমুগ্ধকর এক দৃশ্য। দিগন্তবিস্তৃত ধানক্ষেত, যেন অনন্য প্রকৃতি। এ যেন এক রূপকথার গ্রাম। যেখানে শিক্ষার হার শতভাগ। নেই একজনও নিরক্ষর। অধিকাংশই উচ্চশিক্ষায় আলোকিত। এখানে নেই চুরি, ডাকাতি বা মাদকের ছোবল। নেই ঝগড়া-বিবাদ। দুঃখে পরস্পরের পাশে দাঁড়ানো আর সুখে আনন্দ ভাগাভাগি করাই তাদের মূল বৈশিষ্ট্য।

এমন এক আদর্শ গ্রাম নাটোরের সিংড়া উপজেলার ১০ নম্বর চৌগ্রাম ইউনিয়নের হুলহুলিয়া। অবাক করা তথ্য হলো, গত ২০০ বছরেও এই গ্রামে কখনো পুলিশ আসার প্রয়োজন হয়নি।

 

একটা সময় ছিল, যখন বর্ষা মৌসুমে এই গ্রামে তেমন কোনো ফসল হতো না। ওই সময়ে মানুষের হাতে কোনো কাজও থাকত না। তাই অভাব লেগেই থাকত।

১৯১৪-১৫ সালের দিকে একবার প্রবল বন্যায় ফসল নষ্ট হয়ে যাওয়ায় গ্রামে অভাব দেখা দেয়। বন্যার পর গ্রামের অনেক চাষি ধানবীজের অভাবে জমি ফেলে রাখতে বাধ্য হন। সবার মনে কষ্ট, হতাশা। বিষয়টি গ্রামের মাতবর মছির উদ্দিন মৃধার মনে দাগ কাটে। একদিন গ্রামের প্রতিটি পরিবার থেকে একজন করে লোক ডেকে নিয়ে সভায় বসেন মৃধা। সিদ্ধান্ত হয়, যাদের ঘরে অতিরিক্ত ধানবীজ আছে, তারা বিনা শর্তে অন্যদের ধার দেবেন।

অনুগ্রহ করে পোস্টটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটেগরির অন্যান্য পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *